সোমবার, ২৭শে মে ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

সোমবার, ২৭শে মে ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ সোমবার, ২৭শে মে ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১৩ই জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৮ই জিলকদ ১৪৪৫ হিজরি

চট্টগ্রামে কাভার্ড ভ্যানের ধাক্কায় নিহত হলেন সার্জেন্ট

নিজস্ব প্রতিবেদক: চট্টগ্রাম বন্দরের সঙ্গে ঢাকামুখী মহাসড়কে সংযোগ সৃষ্টিকারী টোল রোডে কাভার্ড ভ্যানের চাপায় নগর পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের বন্দর জোনে কর্মরত সার্জেন্ট বকশী মোহাম্মদ আবদুল্লাহ (৩০) এর মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৭ অক্টোবর) সন্ধ্যা পৌনে ৬টার দিকে চট্টগ্রাম নগরীর পাহাড়তলী থানার রাণী রাসমনির ঘাটসংলগ্ন টোল রোডের স্থানে এই দুর্ঘটনা ঘটেছে।

২০১৫ সালে পুলিশে যোগ দেওয়া আবদুল্লাহর বাড়ি কুড়িগ্রাম জেলায়।

সিএমপির উপ-কমিশনার (ট্রাফিক-বন্দর) তারেক আহমেদ সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, ‘টোল রোডে দায়িত্ব পালনের সময় কাভার্ড ভ্যানের ধাক্কায় মাথায় গুরুতর আঘাত পায় সার্জেন্ট আবদুল্লাহ। ঘটনাস্থল থেকে তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়।’

পাহাড়তলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মাইনুর রহমান বলেন, ‘হাসপাতালে নেওয়ার পর সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেছেন। আমরা কাভার্ড ভ্যানের চালককে তাৎক্ষণিকভাবে গ্রেফতার করেছি।’

চমেক হাসপাতালে জরুরি বিভাগের সামনে গতকাল সন্ধ্যায় স্বামীর জন্য আহাজারি করতে করতে তার স্ত্রী বলছিলেন, গত বুধবার তিনি কুড়িগ্রামের বাপের বাড়ি থেকে চট্টগ্রামের বাসায় এসেছিলেন। সাথে ছোট বোনকেও নিয়ে এসেছিলেন। গ্রামের বাড়ি থেকে স্বামীর জন্য অনেক কিছু নিয়ে এসেছিলেন। গতকাল দুপুরে স্বামীর সাথে খাবারও খেয়েছিলেন। একটু কথা বলার পর বার বার অজ্ঞান হচ্ছিলেন আবদুল্লাহর স্ত্রী।

নিহতের চাচা আনোয়ার হোসেন বলেন, আবদুল্লাহ পুলিশে যোগ দিয়েছে প্রায় চার বছর। বিয়ে করেছে বছর দুয়েক হবে। তবে এখনো কোন সন্তান নেয়নি। আবদুল্লাহ ছিল পরিবারের সবার বড়। তাই তাকে নিয়ে সবার আশা-ভরসা সবচেয়ে বেশি ছিল। সবাইকে শোকের সাগরে ভাসিয়ে সে চলে গেল। একথা বলতে বলতে ছোট বোন ও চাচা আনোয়ার হোসেনও অঝোরে কাঁদছিলেন জরুরি বিভাগের বারান্দায়।

এদিকে, সার্জেন্ট আবদুল্লাহ’র মৃত্যুর পর সহকর্মীদের মাঝেও নেমে এসেছে শোকের ছায়া। বন্দর জোনের ট্রাফিক পরিদর্শক পারভেজ পূর্বকোণকে বলেন, এই মৃত্যু কোনভাবেই মানা যায় না। সিএমপি একজন প্রতিভাবান তরুণ কর্মকর্তাকে হারাল। হাসপাতালে আবদুল্লাহর লাশ এক নজর দেখতে ট্রাফিক বিভাগের অনেক কর্মকর্তা ছুটে আসেন।

সন্ধ্যা ৬টা ৪০মিনিটে আবদুল্লাহ’র লাশ দেখতে আসেন সিএমপি পুলিশ কমিশনার মাহাবুবর রহমান। এ সময় তিনি নিহতের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান। এসময় পুলিশ কমিশনারের পাশাপাশি নগর পুলিশের অন্যান্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারাও উপস্থিত ছিলেন। রাত ৯টায় দামপাড়া পুলিশ লাইনে নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজা শেষে লাশ গ্রামের বাড়ি কুড়িগ্রামে নিয়ে যাওয়া হয়।

Facebook
Twitter
LinkedIn
Telegram
WhatsApp
Email
Print